73 / 100

একটা কথা প্রচলিত আছে, ‘হায়রে চিলে কান নিয়ে গেছে’ -ব্যস! কথাটা শুনে কোন বাছবিচার না করেই সবাই চিলের পিছে ছোটা শুরু করে। এখানে কিছু শাকিব ভক্তের হইছে সেই অবস্থা! তারা একজনের মুখে শুনছে তৌসিফ একটা নাটকে শাকিব খানকে অপমান করছে, ওমনি সবাই না দেখেই তৌসিফের চৌদ্দগুষ্টি নিয়ে গালাগালিতে মেতে উঠছে।

আসল ঘটনা হলো, ২দিন আগে ইউটিউবে ‘ওহ! মাই ডার্লিং’ -নামে তৌসিফ-সাফা কবিরের একটা নাটক রিলিজ হইছে। সেই নাটকে সাফা কবির শাকিব খানের ছবি দেখতে চায়, যেটা শুনে তৌসিফ রেগে বাসায় গিয়ে একটা পুতুলকে সাফা সাজায়ে গালি দিয়ে বলে- ‘তুই একটা ক্ষ্যাত, শাকিবের ছবি কেউ দেখে, হে?’
ব্যস এতোখানিই! এরপর শাকিব ভক্তরা তো পারলে রাস্তায় নেমে তৌসিফের ছবি পুড়ানো শুরু করে দেয়, খালি করোনার কারণে হচ্ছে না।

ওহ! মাই ডার্লিং’ -নামে তৌসিফ-সাফা কবিরের নাটক

আপনাদের কমনসেন্স বাড়ানোর স্বার্থে বলতে চাই, একজন অভিনেতা শুধুই অভিনেতা। তাকে ডিরেক্টর, রাইটার যেটা করতে বলবেন, তিনি সেটাই করবেন। নাটক, সিনেমার ডায়ালগের সাথে নায়ক-নায়িকার কোন হাত থাকেনা। ওই নাটকের স্ক্রিপ্ট যিনি লিখছেন, তাঁর উচিত ছিল এমন বিতর্কিত কথা এড়িয়ে যাওয়া। কিন্তু সেটা না দেখে শুধু তৌসিফ কে গালিগালাজ করা, তার বাবা-মা তুলে গালি দেওয়াটা কোন সভ্যতার মধ্যে পড়ে ভাই??

শাকিব খান-ঢালিউড কিং” নামের গ্রুপে এই বিষয় নিয়ে তথাকথিত শাকিব ভক্তদের নোংরামির লেভেল দেখে যাস্ট বমি এসে গেছে। সাফা কবিরের অফিশিয়াল পেজে এই নাটকের লিংকের কমেন্ট বক্সেও দেখি নোংরামির চুড়ান্ত লেভেল ছেড়ে গেছে। তাহলে আমাকে বলুন, এই আপনারা যারা শাকিবের ভক্ত বলে পরিচয় দিচ্ছেন, আপনারা নিজেরাই তো ‘ক্ষ্যাত’ -এর পরিচয় দিয়ে যাচ্ছেন। তাহলে সেই নাটকের ক্ষ্যাত বলাটাই তো ঠিক ছিল, যেটার প্রমাণ আপনারাই প্রতিনিয়ত গালিগালাজ করে দিয়ে যাচ্ছেন 🙂

সভ্য হতে শেখেন, কাদা ছোড়াছুড়ি বন্ধ করেন