ভাত দে চলচিত্রটি বাংলাদেশী চলচিত্রের মধ্যে প্রথম কান উৎসবে যোগ দেয়

মুভি নামঃ ভাত দে (১৯৮৪)

পরিচালকঃ আমজাদ হোসেন

দৈর্ঘ্যঃ ২ ঘন্টা ২০ মিনিট

ভাষাঃ বাংলা

আমার রেটিংঃ ৭/১০

ক্যাটাগড়িঃ জীবনি,

– ভাত দে চলচিত্রটি বাংলাদেশী চলচিত্রের মধ্যে প্রথম কান উৎসবে যোগ দেয়,
এটি আমজাদ হোসেনের ভাত দে উপন্যাস অবলম্বনে তৈরী!
এছাড়াও এ চলচিত্রটি জাতীয় চলচিত্র পুরুষ্কার জিতে চারটি ক্যাটাগড়িতে ৷

এ মুভিতে শাবানা অভিনয় করে শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরুষ্কার পান ৷

এ মুভিতে আরো অভিনয় করেছেন, আলমগীর, আখি আলমগীর, আনোয়ার, আনোয়ারা, রাজীব, টেলিসামাদ প্রমুখ৷

গল্পটি বাস্তবিক ৷

– বাউলের অভাবের সংসার
তার সংসারে তার বউ রহিমা ও জরি এ নিয়েই তার সংসার,

গ্রামে গ্রামে উদাসীনের মতন ঘুরে একতারা বাজিয়ে গান করে দু পয়সা কামাই করা তার পেশা,

এদিকে সংসারে যে দু মুঠো চাল ডাল নেই সে দিকে ভ্রুকেপ নেই বাউলের ৷

এক পর্যায়ে বাউলের মেয়ে কিশোরী জরী দুই দিন না খেয়ে থেকে অজ্ঞান হয়ে যায়, তারপর তার মা রহীমা বেগম পাশের বাড়ীতে মেয়ে জরীর জন্য ভাত চুরি করতে যান, বিধিবাম সেখানে গিয়ে ভাত চুরি করতে গিয়ে ধরাত পরে যান ৷ তারপর ওরা মাকধর করে৷ 1f622:'(

– বাঙালী মানুষ মন্দিরে, মরা মানুষের মাজারে খাদ্য দেয় কিন্তু জীবন্ত মানুষ যে না খেয়ে মারা যায় সেটা বাঙালীরা দেখবে না ৷ ওরা তাদের মরা মাজার পীর দের সবকিছু উজার করে দিবে কিন্তু জীবন্ত মানুষকে দুমুঠো ভাত খাওয়াবে না ৷

এ মুভিতে দেখা যায় মানুষ না খেয়ে মরে যাচ্ছে তখন কেউ সাহায্য করে না কিন্তু মারা যাবার পর লাশের উপরে দুই টাকা দশ টাকা করে ছিটিয়ে দিচ্ছি!

থু থু এমন বাঙালী অমানুষদের ৷

আশা করি ভালো লাগবে বাংলাদেশী এ মুভিটি ৷