85 / 100

বলিউড ওয়েব সিরিজ গুলো আমার কাছে বেশ ভালো লাগে। অনেক রিলেটিভিটি পাওয়া যায়। আজকে আমার দেখা একশন, ক্রাইম-ড্রামা, থ্রীলার জনরার পছন্দের কয়েকটি সিরিজ নিয়ে লেখার চেষ্টা করেছি। এখানে আমি নিজস্ব পছন্দের ভিত্তিতে সিরিজগুলোর র‍্যাংকিং করেছি। একটু লম্বা পোস্ট। কিন্তু একসাথে কয়েকটি সিরিজ সম্পর্কে ব্যাসিক ধারণা পেয়ে যাবেন আশা করি।

Paatal lok banner
Paatal Lok Web Series Banner

1. Paatal Lok (2020 – Amazon Prime)

IMDb Rating : 7.5

Personal Rating : 9.5

পার্সোনালি আমার সবথেকে পছন্দের বলিউড ওয়েব সিরিজ এটি।প্রথমে ট্রেইলার দেখে সাধারণ কোন ক্রাইম থ্রিলার হবে বলেই মনে করেছিলাম। কিন্তু সিরিজটা দেখার পর আমার ধারণা পুরোপুরি পাল্টে গেছে। কোন সাধারণ কিলার পুলিশ সাইকোলজি অথবা কিলার পুলিশ চেজ নয় বরং পুরোই ভিন্ন একটু রহস্যের পিছনে ছুটে চলা।

একজন পুলিশ অফিসার এবং তার এসিট্যান্ট কে একজন জনপ্রিয় টিভি রিপোর্টারের Attempt to Murder কেস তদন্তের দায়িত্ব দেয়া হয়। স্পেশাল ফোর্স ৪ জন আসামী কে আটক করে পুলিশের হাতে হস্তান্তর কর। তদন্তে আসামীদের ব্যাকগ্রাউন্ড চেক করতে গিয়ে উঠে আসে বিভিন্ন প্রশ্ন। এসব তদন্তের মধ্যেই সাসপেন্ড হন দায়িত্বরত পুলিশ অফিসার। কেস CBI কে হস্তান্তর করা হয়। যেখানে উঠে আসে পুরোপুরি ভিন্ন এক চিত্র। এবার পুলিশ অফিসার নিজ উদ্দোগে তদন্তে নেমে পরেন। আসামীদের যোগসূত্র অনুসঃন্ধানে উঠে আসে চাঞ্চল্যকর এক সত্য। কি সেই রহস্য এবং তা উন্মোচন এর রোমাঞ্চকর কাহিনী জানতে হলে দেখতে হবে সিরিজটি।

হিন্দু পুরাণে উল্লেখিত স্বর্গ, ধরণী এবং পাতাল এর প্রতিকীরূপে আমাদের সমাজেরই বিভিন্ন অংশকে দেখানো হয়েছে এখানে। একটি ঘটনাকে কেন্দ্র করে বর্তমান ভারতের কিছু অপ্রিয় সত্য ঘটানাকে বাস্তবধর্মী ভাবে ফুটিয়ে তোলা ছিল নিঃসন্দেহে অসাধারণ। রাজনৈতিক মারপ্যাচ, সাম্প্রদায়িকতা, জাতিগত বৈষম্য, LGBTQ, পারিবারিক অসংগতি, পেশাদারী ক্ষেত্রে বৈষম্য এধরণের Dark Truth বিষয়গুলোকে নিখুঁতভাবে উপস্থাপন করার চেষ্টা এর আগে আর কখনো হয় নি। বাস্তবিক উপস্থাপন, কাহিনী, টুইস্ট, ক্যারেক্টারাইজেশন, ডিরেকশন, অভিনয়, ডায়লগ, স্ক্রীন প্লে, ব্যাকগ্রাউন্ড মিউজিক সব দিক মিলিয়ে আমার লিস্টে টপে থাকবে এটি। এক সিজনেই গল্পের ইতি টানা হয়েছে বলা যায়। কিন্তু রেস্পন্স ভালো পাওয়ান নতুন কাহিনী নিয়ে নতুন সিজন আসলে আসতেও পারে।

Read In More In Details: পাতাল লোক বলিউড ওয়েব সিরিজ

Sacred Games Banner
Sacred Games Web Series

2. Sacred Games (S1-2018, S2-2019 – Netflix)

IMDb Rating : 8.7

Personal Rating : 9

ভারতীয় ওয়েব সিরিজগুলোর মধ্যে সবথেকে বেশি আলোচিত নাম। Sacred Games মূলত ২০০৬ সালে প্রকাশিত একটি উপন্যাস। যার লেখক প্রখ্যাত ভারতীয়/আমেরিকান লেখক বিক্রম চন্দ্র। উপন্যাসের আলোকে নির্মিত হলেও স্ক্রিনপ্লে লিখতে গিয়ে প্রচুর নতুন জিনিস এড করা হয়। সিরিজটি দুইটি সিজনে মুক্তি পায়। প্রথম সিজনের জনপ্রিয়তার কারণে কলকাতায় মূল উপন্যাসের সকল বই বিক্রি হয়ে যা। দ্বিতীয় সিজনটি তুলনামূলক ভাবে একটু স্লো এবং কম জনপ্রিয়তা লাভ করলেও সব মিলিয়ে বলিউড ওয়েব সিরিজটি বেশ উপভোগ্য।

কাহিনী শুরু হয় একটা ফোন কলের মাধ্যমে। পুরাতন এক গ্যাঙ্গস্ট্যার গাইতোন্ডের কল আসে থানার সাধারন এক অফিসার সারতাজের কাছে। বলা হয় ২৫ দিনের মধ্যে বোম্বে শেষ শুধু বেঁচে থাকবে ত্রিভেদি। ফোন ট্রেস করে গাইতোন্ডের কাছে পৌঁছাতেই গাইতোন্ডে সুইসাইড করে ফেলে এবং সারতাজ কে ফেলে যায় বিশাল এক রহস্যের সমুদ্রে। সারতাজ শুরু করে অভিযান। শুরু হয় গাইতোন্ডের কাহিনী। তার উউৎপত্তি, বিস্তার, উউত্থান, পতন সব। আস্তে আস্তে সামনে আসতে থাকে পারুল্কার, বান্টি, ইসা, কুক্কু, আঞ্জালী, ম্যালকম, ভোসলে, কুসুম দেবী, জোজো, বাটিয়া এবং সবশেষে গুরুজী। কে এই গুরুজী যে গাইতোন্ডেকে এই পর্যায়ে নিয়ে এসেছে। কি তার ভূমিকা এই সবের পিছনে। সারতাজ কি বোম্বে কে রক্ষা করতে পারবে?

এখানেও হিন্দু-মুসলিম টানাপোড়েন আর পলিটিক্সের কালো দিকগুলো তুলে ধরতে কিছু কিছু মিথলজিকাল টার্ম উদাহরণ টেনেছেন লেখক। আমাদের আশেপাশের পুরো সিস্টেমটা কিভাবে নিয়ন্ত্রিত হয় এবং কারা নিয়ন্ত্রণ করে সেটাকে কিছুটা রূপক ভাবে দেখানোর চেষ্টা করা হয়েছে। মানুষের মধ্যে সিস্টেমের আনুগত্য তৈরির প্রক্রিয়া টা বোঝানোর চেষ্টায় দ্বিতীয় সিজনটা একটু স্লো হয়ে গেলেও মন্দ হয় নি। কাস্টিং, মূল উপন্যাসের এডাপটেশন, টুইস্ট, এপিক স্টোরি টেলিং, মেসেজিং, অসাধারণ অভিনয়, ডায়লগ, স্ক্রীণ প্লে সব দিক থেকে অসাধারণ। মূল উপন্যাস এর থেকে ভিন্ন ভাবে ইতি টানা হয়েছে শেষ সিজনে। সেজন্য পরবর্তী সিজন আসবে কি আসবে না বলা মুশকিল।

Special ops web series
Special Ops Web Series

3. Special Ops (2020 – Hotstar Special)

IMDb Rating : 8.6

Personal Rating : 8.5

ইন্টিলিজেন্স এজেন্সি এবং সিক্রেট সার্ভিস নিয়ে মুভি সিরিজ সবই আমাদের বেশ পছন্দের। এগুলো তে আলাদা একটা উত্তেজনা কাজ করে। কেমন লাইফ হয় এজেন্ট দের, কিভাবে মিশন কমপ্লিট হয় সব কিছু নিয়েই আমাদের জানার আগ্রহ থাকে। এই বলিউড ওয়েব সিরিজে ডিরেক্টর নীরাজ পান্ডে ইন্টেলিজেন্স সার্ভিসের বেশ বাস্তবিক একটা রূপ আমাদের সামনে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছেন।

গল্পের শুরু হয় ইন্টিলিজেন্স সার্ভিসের রিসার্চ এবং এনালাইসিং উইং এর একজন অফিসার হিম্মত সিং এর ইনকোয়েরি দিয়ে। যেখানে বিগত বছরগুলোতে তার খরচের হিসাব চাওয়া হয়। এই ইনকোয়েরির ধাপে ধাপে উঠে আসে বিভিন্ন স্থানে অবস্থানরত বিভিন্ন এজেন্ট দের তথ্য। যাদেরকে প্ল্যান্ট করা হয়েছে বিশেষ একজন মানুষকে খুজে বের করার জন্য। যে কিনা বিগত বছরগুলোতে ভারতে সংগঠিত পার্লামেন্ট হামলা, ২৬/১১ সহ অন্যান্য জংগী হামলাগুলোর পেছনের মূল কারিগর। এই একজন মানুষকে ধরার জন্য কত দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করতে হয়েছে এবং কত শত প্ল্যান করতে হয়েছে তা নিয়েই সামনে এগিয়ে চলা।

এই বলিউড ওয়েব সিরিজে প্রত্যেকটা জিনিস বেশ ভালো ভাবে রিসার্চ করা আর প্রত্যেকের অভিনয় অত্যন্ত নিখুঁতভাবে চিত্রিত করা। ডায়লগগুলোও রিয়েলেস্টিক আর ডাটা বেসড। ডিটেইলিং প্রায় শতভাগ অন পয়েন্ট। এজেন্টদের প্রটোকল কেমন থাকে, তাদের আচার আচরণ, চলা ফেরা সবকিছুই মাপা। খুবই কম্প্যাক্ট স্টোরিটেলিং, ভাবগাম্ভীর্যতা, থ্রীল, টুইস্ট, লোকেশন, সিনেম্যাটোগ্রাফি সব মিলিয়ে অসম্ভব সুন্দর একটি বলিউড ওয়েব সিরিজ। আর কোন সিজন আসবে কিনা বলতে পারছি না কারণ এই সিজনের কাহিনী মোটামুটি শেষ করে দিয়েছে।

Asur web series banner 1
Asur Web Series

4. Asur (2020)

IMDb Rating : 8.5

Personal Rating : 8.3

কুন্ডলী এর নাম তো শুনেছেন অবশ্যই। কারো কুন্ডলী দেখে ধারণা করা হয় তার স্বভাব, চরিত্র, চাল চলন, ভবিষ্যৎ কেমন হবে। এই বলিউড ওয়েব সিরিজটি হিন্দু মিথোলজির সাথে বৈজ্ঞানিক তত্ত্বের এক সংমিশ্রণ বলা চলে।

দুজন সিবিআই অফিসার ধনঞ্জয় রাজপুত এবং নিখিল নায়ারকে। অতীতে কোন ঘটনাকে কেন্দ্র করে নিখিল তার চাকরি ছেড়ে চলে যায়। অদ্ভুত ভাবে সাম্প্রতিক ৩টা মার্ডারের লোকেশন দেশের বাইরে থাকা নিখিলের কাছে আসতে থাকে। যার কারণে নিখিল আবার কাজে যোগ দেয়। সেই রহস্যের জের ধরে উন্মোচিত হতে থাকে একটার পর একটা হত্যার রহস্য। এই সব রহস্যই রাজপুত এবং নিখিলের কোন একটু বিশেষ অতীতের সাথে সম্পৃক্ত।

এখানে প্রতিটা ঘটনার বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা খুব চতুরতার সাথে পৌরাণিক কাহিনীর সঙ্গে যুক্ত করা হয়েছে যা কাহিনীর মূল রহস্যের দিকে ইংগিত করে। মানুষের মন কতোটা বিচিত্র, অস্থিতিশীল এবং পরিবর্তনশীল তা চমৎকার ভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। শিশুদের মন নরম মাটির মত, ছোটবেলা থেকে সে কি শিখছে শুনছে সেই অনুযায়ী সে নিজের সত্তাকে তৈরি করে। খুব সহজেই কথার মাধ্যমে মানুষকে কতটা প্রভাবিত করা সম্ভব তার সুস্পষ্ট নিদর্শন। And there is no right way of doing wrong thing. ফরেন্সিক সহ আরো কিছু বিষয় বেশ আনরিয়েলিস্টিক মনে হলেও সব কিছু যেহেতু ফিকশনাল তাই মানতে কষ্ট হয়নি। এক্সিলেন্ট মিথলজিকাল মিক্স আপ, কন্টিনিউয়াস থ্রিল, টুইস্ট, স্টোরিটেলিং, ব্যাকগ্রাউন্ড সব মিলিয়ে সেরা একটা বলিউড ওয়েব সিরিজ। অনেক প্রশ্ন রেখে প্রথম সিজনের সমাপ্তি করা হয়েছে। তাই সামনে ২য় সিজন আসছে অবশ্যই।

Mirzapur web series
Mirzapur Web Series

5. Mirzapur (2018 – Amazon Prime)

IMDb Rating : 8.5

Personal Rating : 8.1

মির্জাপুরের কাহিনী কিছুটা টিপিকাল। The hunger for power. ট্রেইলার দেখেই স্টোরি সম্পর্কে একটা বেসিক ধারণা পাবেন। কিন্তু মাঝে মাঝে টিপিকাল স্টোরিও যখন অনেক বেশি ডিটেইলস এর সাথে প্রেজেন্ট করা হয় তখন সেটা অসাধারণ হয়ে উঠে।

কাহিনী মূলত ভারতের উত্তর প্রদেশের মির্জাপুর অঞ্চল এর ক্ষমতার দখলদারি কে কেন্দ্র করে। সেখানকার সবথেকে বড় প্রভাবশালী মাফিয়া কালীন ভাইয়া। কিন্তু পাশের শহরের রতি শংকর এর সাথে তার পুরাতন শত্রুতা। আর অপরদিকে ঘটনাচক্রে দুই উকিলপূত্র গুড্ডু আর বাবলু বাধ্য হয়ে কালীন ভাইয়ার গ্যাং জয়েন করে। খুব সহজেই রাজপূত্র মুন্না কে পিছনে ফেলে দুই ভাই অনেক উপরে উঠে যেতে থাকে। শুরু হয় আত্মসম্মান রক্ষার লড়াই। এর সাথে হাজির হয় রতি শংকর আর ইন্সপেক্টর রাম মোহন এর কাহিনী। বহুমুখী এক কাহিনী চলতে থাকে এখান থেকেই।

সিরিজে খুব নিখুঁতভাবে একজন মাফিয়া ডনের ক্যারেক্টরকে ফুটিয়ে তোলা হয়েছে। তার চাল চলন, কাজ, কথাবার্তা, বুদ্ধিমত্তা, সিদ্ধান্ত সব কিছুর বাস্তবিক প্রদর্শন। এছাড়া ক্ষমতার প্রতি মানুষের নেশা এবং ক্ষমতা নিয়ন্ত্রণ সব কিছুই সুন্দর ভাবে সাজানো হয়েছে। পুরো বলিউড ওয়েব সিরিজ ভায়োলেন্স আর গালাগালিতে ভরপুর। কিন্তু কোথাও গালিগুলোকে জোর করে দেয়ার মত মনে হয় নি। বেশ কিছু ১৮+ সিন ও রয়েছে। কাস্টিং, ক্যারেক্টার সেট আপ, থ্রিলার, কাহিনী, অভিনয়, ডায়লগ সব মিলিয়ে বেশ ভালো লাগবে যে কারোই। ২য় সিজন আসার কথা খুব শীঘ্রই যেখানে গল্পে আসবে অনেক নতুন মোড়।

Family Man web series banner
Family Man Web Series

6. The Family Man (2019 – Amazon Prime)

IMDb Rating : 8.6

Personal Rating : 8

এটিও ইন্টিলিজেন্স এজেন্সী এবং সিক্রেট সার্ভিস কেন্দ্র করে বানানো। কিন্তু এখানে একজন সিক্রেট সার্ভিস অফিসারের পেশাদার জীবনের পাশাপাশি ব্যাক্তিগত জীবনও সমান গুরুত্ব পেয়েছে। স্পেশাল এজেন্ট বলতেই আমাদের চোখে জেমস বন্ড, জেসন বর্ন, ইথান হান্ট এর মত চরিত্র সামনে আসে, যাদের আগে পিছে কেও নেই। কিন্তু এজেন্সি তে এমন এজেন্টের পাশা পাশি আরো অনেক ধরনের এজেন্ট থাকেন যাদের নিজেদের পরিবার রয়েছে এবং দুটো লাইফ একসাথে হ্যান্ডেল করেন তারা। The other life of a agent.

কাহিনীর মূল চরিত্র শ্রীকান্ত ইন্ডিয়ান সিক্রেট সার্ভিসে সিনিওর এনালিস্ট হিসেবে কাজ করেন। নিজের কর্মজীবনের পাশাপাশি তার রয়েছে স্ত্রী এবং দুই সন্তানের একটি পরিবার। নিজের পরিবারকে নিয়ে খুবই মধ্যবিত্ত জীবনযাপন করেন। দেশের সুরক্ষা ব্যাবস্থার কাজে ব্যস্ত থাকার কারণে নিজের পারিবারিক দায়িত্ব পালনে বেশ এমনিতেই অনেক হিমশিম খেতে হয় তাকে। এর মধ্যেই বড় এক হামলার প্রস্তুতির খবর পেয়ে কাজে লেগে পরেন শীকান্ত। এভাবেই সামনে আগাতে থাকে কাহিনী। শ্রীকান্ত কি এই হামলাকে প্রতিহত করতে পারে বেন, আর কি হতে বে তার পারিবারিক জীবনে??? জানতে হলে দেখতে হবে বলিউড ওয়েব সিরিজটি।

সিরিজটি জনমনে প্রচুর সাড়া ফেলেছে মূলত এজেন্টের সাধারণ লাইফকে সামনে তুলে ধরার জন্য। কিন্তু দেখাতে গিয়ে কিছু ক্ষেত্রে একটু বেশিই সাধারণ বানিয়ে ফেলা হয়েছে। গালি দেয়ার সময় মনে হচ্ছিলো জোর করে দিচ্ছে। কাহিনীতেও বেশ কিছু লুপ হোল আছে। এদিক থেকে Special Ops নিজের স্টোরি অনুযায়ী বেশি বাস্তবিক প্রদর্শন করতে সক্ষম হয়েছে। তবে এই সিরিজের নতুনত্ব, কমেডী, হিউমার, সাসপেন্স, অভিনয় সব কিছু মিলিয়ে খারাপ লাগবে না। ভালোই এনজয় করবেন আশা করি। ২য় বলিউড ওয়েব সিরিজ আসার ইংগিত সুস্পষ্ট কারণ বড়সড় সাসপেন্স রেখেই শেষ হয়েছে প্রথম সিজন।

breathe web series banner
Breathe Web Series

7. Breathe (2018 -Amazon Prime)

IMDb Rating : 8.4

Personal Rating : 7.5

সন্তানের প্রতি বাবা মা এর ভালোবাসা কোন ভাবেই পরিমাপ করা সম্ভব না। নিজের সন্তানের জন্য তারা যে কোন কিছুই করতে পারেন। এই বলিউড ওয়েব সিরিজটি পুরোপুরি এই হিউম্যান ইমোশনকে কেন্দ্র করেই তৈরি করা।

ড্যানি একজন সিংগেল প্যারেন্ট। তার একমাত্র ছেলে জশের ফুসফুসে সমস্যা। অর্গান ট্রান্সপ্লান্টের প্রয়োজন। যেখানে ব্লাড ডোনার পাওয়া মুশকিল সেখানে অর্গান ডোনার পাওয়া আমাবস্যার চাদের চেয়েও দুষ্কর। আর কোন উপায় না পেয়ে একমাত্র সন্তানকে বাচাতে ড্যানি বেছে নেয় অন্য পথ। যেই পথে চলার জন্য নিজের সকল নৈতিকতা বিসর্জন দিতে হয় তাকে। তার একমাত্র বাধা হয়ে দাড়ান পুলিশ অফিসার কবির। তার নিজের জীবনেও রয়েছে সন্তান কেন্দ্রীয় একটা অধ্যায়। কি করছিলো ড্যানি আর জশ কে কি বাচাতে পারি বে সে? এইসব জানতে হলে দেখে ফেলুন এই বলিউড ওয়েব সিরিজটি।

আমার দেখা সবথেকে ছোট কাস্টিং মনে হয় এই সিরিজের ই। অল্প কিছু ক্যারেক্টারে পুরো কাহিনী সীমাবদ্ধ। কাহিনী টা একটু অকোয়ার্ড মনে হলেও ইমোশনাল এটাচমেন্ট এর দিক থেকে ভালো ভাবেই মানানসই। কিছু কিছু ক্ষেত্রে আপনি কাকে সাপোর্ট করবেন বুঝতে পারবেন না। ছোট ছোট কিছু অসংগতি ছিল। আর কাহিনীতে তেমন কোন টুইস্ট নেই কিছু ক্ষেত্রে সাসপেন্স তৈরির চেষ্টা করা হয়েছে আকর্ষণ বাড়ানোর জন্য। এন্ডিং টা বেশ ভালো লেগেছে আমার কাছে। ওভারওল খারাপ লাগবে না। পরবর্তী কোন সিজন আসবে বলে মনে হয় না।

Delhi Crime web series banner
Delhi Crime Web Series

8. Delhi Crime (2019 – Netflix)

IMDb Rating : 8.5

এটি ভারতের দিল্লির ২০১২ এর নির্ভয়া রেপ কেইস এর তদন্তকে কেন্দ্র করে নির্মিত। মূলত পুলিশ কিভাবে এই নিকৃষ্ট কাজের পিছনের কীটগুলোকে খুজে বের করেছিল এবং পাশাপাশি এরকম স্পর্শকাতর বিষয় নিয়েও যে নোংরা রাজনীতির চর্চা সম্ভব সেটাই দেখানো হয়েছে। আসামীদের আইনের আওতায় আনতে পুলিশ ফোর্সের পরিশ্রম এবং ডেডিকেশন অনেক সুন্দর ভাবে তুলে ধরা হয়েছে। এই বলিউড ওয়েব সিরিজ টা দেখার পর একজন সৎ পুলিশ এর প্রতি শ্রদ্ধা অনেক গুন বেড়ে গিয়েছে।যিনি কিনা দিনের পর দিন নিজের পরিবার এর থেকে দুরে থেকে ২৪ ঘন্টাই আমাদের সুরক্ষার জন্য কাজ করে থাকেন তাদের এই টুকু সম্মান অবশ্যই প্রাপ্য। প্রায় এক কোটি মানুষের ভীরে গুটি কয়েক মানুষকে খুজে বের করা টা কি পরিমাণ পরিশ্রম হতে পারে তা আপনি কিছুটা হলেও আন্দাজ করতে পারবেন। আর এই ঘৃণিত অপরাধীদের মানসিকতা সম্পর্কেও একটা সুস্পষ্ট ধরণা জন্মাবে। আর আপনি আমি এমন একটা ঘটনায় যেমন প্রভাবিত হয় তেমনি কিছু নোংরা মানুষের কাছে এটা কেবল মাত্র একটা ইস্যু। যাকে রাজনীতির মাঠে প্রতিপক্ষের বিরুদ্ধে ব্যবহার করা যায়। আর এই নোংরা খেলার ফলে পুলিশের তদন্তে কি পরিমান ব্যাঘাত ঘটতে পারে এবং আসামী ধরা টা আরো জটিল হতে পারে তা কখনোই তাদের চিন্তার বিষয় নয়। স্বার্থপরতার বেশ কিছু ভালো উদাহরণ দেখতে পাবেন। এমন সত্য ঘটনাও বেশ কিছু থ্রীল আর সাসপেন্স এর একটা মিশ্রণ। সিরিজটি তাই যে কারোই ভালো লাগবে। এমন সিরিজকে পার্সোনাল রেটিং দেয়া উচিত নয়।

লেখক: Merajul Islam Polash, সিনেমা সমালোচক।